সদ্য প্রাপ্ত
দে‌শের প্রতি‌টি জেলা উপ‌জেলায় সংবাদকর্মী নি‌য়োগ দেওয়া হ‌বে। আগ্রহিরা যোগা‌যোগ করুনঃ ০১৯২০৫৩৩৩৩৯
টাঙ্গাইলে তিন নদীর পানি বিপদসীমার উপরে

টাঙ্গাইলে তিন নদীর পানি বিপদসীমার উপরে

মোঃ সজিব হোসাইন
টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলে যমুনা ও ঝিনাই নদীর পানি কমলেও ধলেশ্বরীসহ অন্যন্য নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে যমুনা, ঝিনাই ও ধলেশ্বরী নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে ৬টি উপজেলায় ১ লাখ ২৪ হাজার ৫৭১ জন পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

এছাড়াও ৩ হাজার ৬১৩ হেক্টর ফসলী জমি নিমজ্জিত হয়েছে। এতে জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে।

জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ জানায়, শনিবার যমুনা নদীর পানি ১১ সে.মি. কমে বিপদসীমার ৩৪ সে.মি. উপরে দিয়ে
এবং ঝিনাই নদীর পানি ১ সে.মি. কমে বিপদসীমার ৪৮ সে.মি. বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এছাড়া ধলেশ্বরী নদীর ২ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৯o সে.মি. বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসনের জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্র জানায়, পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলায় এখন পর্যন্ত টাঙ্গাইল সদর, নাগরপুর, দেলদুয়ার, ভূঞাপুর, কালিহাতী এবং গোপালপুর উপজেলার ২১ টি ইউনিয়নের অন্তত ১o১টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

অপরদিকে কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভা আংশিক এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ফলে ১ লাখ ২৪ হাজার ৫৭১ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

অপরদিকে ৫৩২টি পরিবারের ঘরবাড়ি সম্পূণ নদীতে বিলীন হয়ে গেছে এবং আংশিক ৮৭৫টি ঘরবাড়ি নদীতে বিলিন হয়েছে। এছাড়াও নাগরপুরে ১ টি স্কুল নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

এই ৬ উপজেলার ১৪৭ বর্গ কিলোমিটার প্লাবিত হয়েছে। সূত্র আরো জানায়, জেলায় এখন পর্যন্ত ৩৬.৫ কি.মি. আংশিক কাচা রাস্তা এবং ১ কি.মি. আংশিক পাকা রাস্তা
ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও ২টি আংশিক ব্রিজ কালভাট ক্ষতি হয়েছে।

অন্যদিকে ৩ টি টিউওবেল ৩ টি এবং ২.৫ কি.মি. আংশিক নদীর বাধ ক্ষতি হয়েছে।
জেলায় ৩oo মে.ট্রন জিরআর চাল এবং
৮ লাখ টাকা চাহিদা রয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ৫ টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। সেগুলো হলো- মাহমুদনগর, কাতুলী, কাকুয়া, হুগরা এবং ছিলিমপুর।

ভূঞাপুর উপজেলার প্লাবিত ৪ টি ইউনিয়ন হলো- অর্জুনা গাবসারা, নিকরাইল, গোবিন্দাসী এবং নিকরাইল।

কালিহাতী উপজেলার ৪ টি ইউনিয়ন হলো- দূর্গাপুর, গোহালিয়াবাড়ি এবং সল্লা।

গোপালপুর উপজেলার ৩ টি ইউনিয়ন হলো- হেমনগর, ঝাওয়াইল এবং হাদিয়া।

নাগরপুর উপজেলায় ২টি ইউনিয়ন হলো-
সলিমাবাদ এবং পাকুটিয়া।

দেলদুয়ার উপজেলার ৩ টি ইউনিয়ন হলো- আটিয়া, দেওলি, লাউহাটি।

জেলা কৃষি বিভাগ জানায়, গতকালকের চেয়ে আজ ফসলী জমিতে পানি নিমজ্জিত হওয়ার সংখ্যা কমেছে। এখন বর্তমানে ৩ হাজার ৩৭১ হেক্টর ফসলী জমি পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।

এর মধ্যে বোনা আমন ৯৬৯ হেক্টর, রোপা আমন (বীজতলা) ৬ হেক্টর, পাট ৩৮৭ হেক্টর, আউশ ৭o৬ হেক্টর, সবজি ২১১ হেক্টর, তিল ১o৯২ হেক্টর নিমজ্জিত হয়েছে।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিজ্ঞান শাখার উপ-সহকারী প্রকৌশলী রেজাউল করিম বলেন, যমুনা ও
ঝিনাই নদীর পানি কমলেও ধলেশ্বরীর, ঝিনাই, পুংলী, বংশাই, ফটিকজানি পানিতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে যমুনা ঝিনাই ও ধলেশ্বরী নদীর বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সামনে আরো নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের কৃষি সম্প্রাধারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আহসানুল বাশার বলেন, পানি নেমে গেলে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ফসলী জমির কোন ক্ষতি হবে না।
এ ব্যাপারে কৃষি অফিস কাজ করছে বলে তিনি জানান।

সংবাদটি প্রচার করুন




© All rights reserved © 2020 Daily Provat Barta
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com