সদ্য প্রাপ্ত
দে‌শের প্রতি‌টি জেলা উপ‌জেলায় সংবাদকর্মী নি‌য়োগ দেওয়া হ‌বে। আগ্রহিরা যোগা‌যোগ করুনঃ ০১৯২০৫৩৩৩৩৯
টাঙ্গাইলের মধুপুরে চার খুনের মূল হত্যাকারী সাগর গ্রেফতার

টাঙ্গাইলের মধুপুরে চার খুনের মূল হত্যাকারী সাগর গ্রেফতার

মোঃ সজিব হোসাইন
টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি :

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার পৌরসভার মাষ্টার পাড়া এলাকায় চার খুনের মূল হত্যাকারী সাগরকে (২৬) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১২।

রবিবার (১৯ জুলাই) বিকেল ৫ টার দিকে উপজেলার ব্রাহ্মণবাড়ী এলাকা থেকে হত্যাকাণ্ডে জড়িত মূল আসামি সাগর আলীকে গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনার মূল হোতা সাগরকে গ্রেফতারের বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ সিপিসি ৩ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর আবু নাঈম মোহাম্মদ তালাত বলেন সাগরের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পরবর্তীতে তার বোনের বাড়ি উপজেলা ব্রাক্ষ্মনবাড়ি (মজিদ চালা) থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি ও বাসা থেকে চুরি করে নিয়ে যাওয়া টিভি, মোবাইলসহ অন্যান্য মালামাল উদ্ধার করা হয় ।

অপর সহযোগীকে গ্রেফতার করতে র‌্যাব-১২ এর অভিযান চলছে। তিনি বলেন অভিযান চলমান থাকবে ।

হত্যাকারী সাগর বলেন,আব্দুল গনি সুদের ব্যবসা করতো। আমার সাথে আগে থেকেই গনি মিয়ার সাথে সুদের লেনদেন ছিলো। আমি কয়েকবার সুদের টাকা দিতে ব্যর্থ হয়।

গত মঙ্গলবার (১৪ জুলাই )আমার কিছু টাকার দরকার হয় গনির কাছে চাইতে গেলে সে আমাকে অনেক বকাঝকা করে তাড়িয়ে দেয়। এবং বলে তুই আগের টাকাই দিসনাই আবার এখন টাকা চাইতে এসেছিস। যা আগের টাকা নিয়ে আয় তারপর টাকা দিব। এতে সাগর ওখান থেকে চলে যায়। সাগর এতে নিজেকে অপমান বোধ করলে তার অপর এক সহযোগীকে নিয়ে হত্যা এবং টাকা পয়সা ও সম্পদ লুণ্ঠনের পরিকল্পনা করে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী সে তার সহযোগীকে নিয়ে বুধবার (১৫ জুলাই ) দিবাগত রাত আনুমানিক ১০ টার দিকে গনির বাসায় যায়। যাওয়ার আগে সাগরের সহোযোগী বাজার থেকে চেতনা নাশক নিয়ে যায়।

তারা গনির পূর্বপরিচিত হওয়ায় খুব স্বাভাবিক ভাবে বাসায় ঢোকার অনুমতি পায়। এ সময় আকস্মিকভাবে চেতনা নাশক ব্যবহার করে গনিকে অচেতন করে। পরিবারের অন্য সবাই ঘুমে থাকায় অচেতন করতে সহজ হয়। সবাইকে ঠান্ডা মাথায় গনির বাসায় ব্যবহৃত কুরাল ও সাগর সাথে আনা ধারালো অস্ত্র দিয়ে গনি তার স্ত্রী ছেলে এবং মেয়েকে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে গনির বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার সময় বাসার মূল্যমান জিনিসপত্র নিয়ে বাসার বাহির থেকে তালা মেরে পালিয়ে যায়।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১৭ জুলাই )উপজেলার পল্লী বিদ্যুৎ রোডের মাস্টারপাড়া এলাকার একটি বাড়ি থেকে একই পরিবারের চার সদস্যের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সে সময় রক্তাক্ত একটি কুড়াল উদ্ধার করে তারা। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে নিহত গণি মিয়ার বড় মেয়ে সোনিয়া বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করে মধুপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন ।

শনিবার (১৮জুলাই) মরদেহ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়। বিকেলে মরদেহ ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে আব্দুল গনির পৈত্রিক বাড়ি মধুপুরের গোলাবাড়িতে তাদের দাফন করা হয়।

সংবাদটি প্রচার করুন




© All rights reserved © 2020 Daily Provat Barta
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com