সদ্য প্রাপ্ত
দে‌শের প্রতি‌টি জেলা উপ‌জেলায় সংবাদকর্মী নি‌য়োগ দেওয়া হ‌বে। আগ্রহিরা যোগা‌যোগ করুনঃ ০১৯২০৫৩৩৩৩৯
ঘুড়ির খোঁজে লৌহজং নদীতে লাফ, ৫ দিন পর ভেসে উঠল লাশ

ঘুড়ির খোঁজে লৌহজং নদীতে লাফ, ৫ দিন পর ভেসে উঠল লাশ

সেলিম মাহমুদ, কালিহাতি (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলে কালিহাতি উপজেলার এলেঙ্গাতে ঘুড়ি বাঁচাতে নদীতে লাফ দেওয়া সেই ভ্যান-রিকশা চালক মজিবর রহমানের (৪০) অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে বাসাইল থানা পুলিশ।

পাঁচদিন লাশ না পাওয়ার পর শুক্রবার (২৪ জুলাই) বিকেলে বাসাইল উপজেলার ঝিনাই নদীর তীরবর্তী আদাজান ব্রিজ এলাকা থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। বাসাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হারুন অর রশিদ এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

ওসি হারুন অর রশিদ বলেন, নিহত মজিবর ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার রামপুর গ্রামের শামছুদ্দিন ফকিরের ছেলে। মজিবর জেলার কালিহাতি উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার ঈদগাহ মাঠ এলাকায় ভাড়া বাসা নিয়ে ভ্যান-রিকশা চালাতেন। সখের বসে গত রবিবার (১৯জুলাই) দুপুরে ঘুড়ি উড়াতে তার শশুর বাড়ি এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামে যায় এবং ঘুড়ি উড়িয়ে দেন কিন্তু বাতাস না থাকায় ঘুড়িটি বাঁশি ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন লৌহজং মাঝ নদীতে পড়ে গেলে মজিবর ঘুড়িটি আনতে সাঁতার দেন। কিছুদূর সাঁতরিয়ে হাঁপিয়ে যাওয়ায় আর আগাতে না পেরে পাড়ে ওঠার চেষ্টা করে এবং বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করলে স্থানীয় এক ব্যক্তি তাকে উদ্ধার করার জন্য নদীতে নেমে বাঁচানোর চেষ্টা করে কিন্তু নদীতে প্রচন্ড স্রোত থাকায় সেই চেষ্টা বিফলে যায় এবং মূহুর্তের মধ্যেই মজিবর পানির তলদেশে ডুবে যায়।

পরে স্থানীয়রা এলেঙ্গা ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে টাঙ্গাইল থেকে ডুবুরি দল এনে সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে নিখোঁজ ব্যক্তিকে না পাওয়ায় সন্ধ্যা ৭ টার দিকে উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেন।

পরে লাশটি নদীর পানিতে ভেসে উপজেলার (বাসাইল) আদাজান এলাকায় এসে আটকে যায়। অতঃপর স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করা হয়। আইনী প্রক্রিয়া শেষে নিহতের লাশটি তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও তিনি জানান।

সংবাদটি প্রচার করুন




© All rights reserved © 2020 Daily Provat Barta
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com